জাতীয়রংপুর

অসচেতনতায় আবারও রংপুরে বাড়তে পারে করোনা সংক্রমণ

রংপুর প্রতিনিধি :-

কয়েক মাস ধরে করোনার সংক্রমণ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে। রংপুরে বেশ কিছুদিন ধরে সংক্রমণ ১০ এর ওপরে থাকছে। মানুষের চলাফেরা থেকে শুরু করে রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ, বিয়ে, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান সবই চলছে জাঁকজমকভাবে। এসব সভা-সমাবেশ ও অনুষ্ঠানে মানুষের ভিড়ও হচ্ছে প্রচুর।

কিন্তু আগের মতো সে-ই সচেতনতা যেন আর নেই। স্বাস্থ্যবিধি বা শারীরিক দূরত্ব মেনে চলা তো অনেকটা কিতাবের বিষয়, অধিকাংশের মুখে মাস্কও দেখা যায় না।

কিন্তু এখন সহনীয় থাকলেও মানুষের অসচেতনতার কারণে করোনা সংক্রমণ ফের বেড়ে যেতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্টরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একে তো সংক্রমণ অনেকটা সহনীয়। তার ওপর অনেকে দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে বিশেষ করে টিকা গ্রহীতাদের মাঝে এক ধরনের বেপরোয়া ভাব দৃশ্যমান।

তারা মনে করছেন, টিকা গ্রহণের কারণে তারা শতভাগ নিরাপদ। যার কারণে মাস্ক পরায় তাদের যত অনীহা। পাশাপাশি স্বাস্থ্য বিধি প্রতিপালনেও অনাগ্রহ। মানুষের এমন বেপরোয়া ভাব ও অসচেতনতার কারণে করোনা সংক্রমণ ফের বেড়ে যেতে পারে। চিকিৎসকরা জানান, ইংল্যান্ডেও সংক্রমণ বাড়ছে।

আর অতিমারির একটি বৈশিষ্ট্য হলো। বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে সংক্রমণ বাড়লে তা অন্য প্রান্তেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। এছাড়া রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ, বিয়ে, ও সামাজিক অনুষ্ঠান তো আছেই। কোথাও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা বা স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখা যাচ্ছে না। কিন্তু সংক্রমণ থেকে বাঁচতে ঘন ঘন সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার পাশাপাশি মুখে মাস্ক পরার বিকল্প নেই।

স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা বলছেন, টিকাদান শুরুর পর করোনা নিয়ে মানুষের উদাসীনতা আরো বেড়েছে। যেন এক ধরনের অবহেলা কাজ করছে মানুষের মাঝে। আর সংক্রমণ কমে আসায় বেপরোয়া ভাব আরো বেড়েছে। যার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মানা তো দূরের কথা, অধিকাংশের মুখে মাস্কটিও দেখা যাচ্ছে না। অনেকে মাস্ক পরলেও তা হয় থুতনিতে নয়তো গলায় ঝুলতে দেখা যায়।

তাছাড়া বিয়ে, গায়ে হলুদ, উৎসব, মেজবানসহ সব ধরনের সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান হচ্ছে হরহামেশা। কারণ, ইদানিং উৎসব, মেজবানসহ সামাজিক-সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান বেড়ে গেছে। এসব অনুষ্ঠানে প্রচুর জনসমাগম হচ্ছে। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতেও উপচে পড়া ভিড় দেখা যাচ্ছে।

যেখানে স্বাস্থ্যবিধি মানার উদাহরণ নেই বলেলেই চলে। বেশিরবাগের মুখে মাস্কও চোখে পড়ে না। এসব অনুষ্ঠান ও বিনোদন কেন্দ্র থেকে করোনা সংক্রমণ আবারো ছড়িয়ে পড়তে বলে আশঙ্কা করছেন তারা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button