নীলফামারী

আদালতে আসামীর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী সৈয়দপুরে গৃহবধূ মুক্তা বেগমকে পিটিয়ে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, সৈয়দপুর (নীলফামারী):
নীলফামারীর সৈয়দপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামী কর্তৃক স্ত্রী মুক্তা বেগম ২৫) নামের গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নিহত গৃহবধূ বাবা মো. মোস্তফা আলী বাদী হয়ে স্বামী, শ্বশুর, শ্বাশুড়ী, ননদসহ চারকে আসামী করে গত বুধবার রাতে ওই মামলাটি দায়ের করেছেন। আসীমারা হচ্ছে, গৃহবধূর স্বামী তহিদুল ইসলাম (৩০) ও শ্বাশুড়ী তহুরা বেগমকে (৫০), শ্বশুর মো. আফজাল হোসেন (৬০) ও ননদ আফরোজা বেগম (২৪)।

গত বুধবার (১৭ নভেম্বর) সকালে উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ডের বাড়াইশালপাড়া আদর্শ গুচ্ছগ্রাম থেকে স্বামী তহিদুল ইসলাম ও শ্বাশুড়ী তহুরা বেগমকে প্রথমে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে এ ঘটনায় থানায় মামলা হলে আটককৃত ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের নীলফামারী বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত -২ এর বিচারকের কাছে হাজির করা হলে সেখানে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। সেখানে গৃহবধূর স্বামী তহিদুল ইসলাম তাঁর স্ত্রী মুক্তা বেগমকে বাড়িতে থাকা বসার পিঁড়ে দিয়ে পিটিয়ে হত্যার কথা বলেছে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার বেলা ১১ টায় নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের বিমানবন্দরের দক্ষিনে বাড়াইশালপাড়ার আদর্শ গুচ্ছ গ্রাম সংলগ্ন এলাকার একটি ভাড়া বাড়ি থেকে এক সন্তানের জননী গৃহবধূর মুক্তা বেগমের (২৫) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পারিবারিক বিষয় নিয়ে কলহের জেরে স্বামী তহিদুল ইসলাম তার স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা করে।

এ ঘটনায় মোস্তফা আলী তার মেয়েকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে নিহত গৃহবধূর স্বামী তহিদুল ইসলাম, শ্বশুর আফজাল হোসেন, শ্বাশুড়ী তহুরা বেগম ও ননদ আফরোজা বেগমকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button