রংপুর

একটি বিদ্যালয়ের ৬টি কক্ষের মধ্যে ৩টি নদী গর্ভে, সাময়িক পাঠদান বন্ধ

গঙ্গাচড়া উপজেলায় চিলাখাল চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৬টি কক্ষের মধ্যে ৩টি কক্ষ নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। সাময়িক পাঠদান বন্ধ। ছবি- তারার আলো

স্টাফ রিপোর্টার,গঙ্গাচড়া (রংপুর):-
রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার কোলকোন্দ ইউনিয়নের চিলাখাল চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির ৬টি কক্ষের মধ্যে ৩টি কক্ষ তিস্তায় বিলীন হয়ে গেছে।

সম্প্রতিক সময়ে ১দিনের বন্যায় বিদ্যালয়টির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তিস্তার ভাঙনে বিদ্যালয়ের ৩টি কক্ষ ভেঙে যাওয়ায় ওই কক্ষে থাকা বিভিন্ন আসবাবপত্র ভেসে যায়।

অন্য ৩টি কক্ষে ফাটল ধরে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকায় সাময়িক পাঠদান বন্ধ রেখেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিদ্যালয়টি ২০১৯-২০ অর্থ বছরে প্রায় ৩০ লক্ষ নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রয়েছে ১৬৩ জন। অপরিকল্পিতভাবে ভবন নির্মাণের কারনে ১ বছরের মাথায় ৩০ লক্ষ টাকা তিস্তায় বিলীন হয়ে গেল।

এদিকে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জয়নাল মিয়া ও প্রধান আবু বক্কর সিদ্দিক গত ২১ অক্টোবর উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর বিদ্যালয়টি অপসারণ করে নিরাপদ স্থানে প্রতিস্থাপন করার জন্য লিখিত আবেদন করেছেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, ভবনটি তিস্তায় বিলীন হয়ে যাওয়ায় পাঠদান কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে।

বিদ্যালয় ম্যানেজিং সভাপতি জয়নাল মিয়া বলেন, ভেঙে যাওয়া বিদ্যালয়টি অপসারণের জন্য কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন করা হয়েছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাগমা সিলভিয়া বলেন, প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির আবেদনের পরিপেক্ষিতে প্রকৌশল বিভাগ ও শিক্ষা বিভাগের একটি যৌথ টিম বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেছেন।

এখন পর্যন্ত রির্পোট দেয়নি। রির্পোট পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button