রংপুরস্থানীয়

কর্মসৃজন প্রকল্পঃ তারাগঞ্জে ১৬ হাজার টাকা মজুরির পরিবর্তে শ্রমিক পেলেন ৪ হাজার টাকা

তারার আলো খবর:-
তারাগঞ্জ উপজেলার ইকরচালি ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের কর্মসৃজন প্রকল্পে ১৬ হাজার টাকা মজুরির পাওয়ার কথা থাকিলেও শ্রমিকদের হাতে দুই থেকে তিন হাজার টাকা দিয়েছেন ইউপি সদস্য ছাইদুল ইসলাম। এ নিয়ে শ্রমিকদেও মধ্যে ক্ষোভ প্রকাশ শুরু হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানাগছে, এ ওয়ার্ডে ৪০দিনের কর্মসূচীতে অংশ নিয়ে মাটি কাটার কাজ শেষ করেন শ্রমিকেরা। কাজের মেয়াদেও মাঝামাঝি সময়ে শ্রমিকদের নামে রকেট মোবাইল একাউন্ট খোলা হয়।

অভিযোগ উঠেছে, সু-চর্তুর ইউপি সদস্য ছাইদুল ইসলাম নিজেই শ্রমিকদের নামে মোবাইল সিম কিনে শ্রমিকদের নামে একাউন্ট খোলার পর তার নিজের কাছে গচ্ছিত রাখেন। গত বুধবার শ্রমিকদের নামে মুঠোফোনে টাকা আসলে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য সমস্ত সিমের টাকা উত্তোলন করে বৃহস্পতিবার(২৪ মার্চ) বিকেলে তার নিজের বাড়িতে শ্রমিকদের ডেকে নিয়ে প্রত্যেক সদস্যকে ১৬ হাজার টাকা না দিয়ে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে তাদেরকে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা করে দেন।

এসময় শ্রমিকেরা প্রতিবাদ করলে তাদেরকে মাটিকাটা থেকে নাম কর্তন করাসহ বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। এসময় কয়েকজন শ্রমিক টাকা না নিয়ে বাড়িতে চলে যায়। কর্মসূচিতে অন্তভুক্ত শ্রমিক শান্তবালা, দেল জাহান বেগম, ফারুক হোসেন, দিনেশ ও সুকুমার অভিযোগ করেন, উপজেলার অন্য চার ইউনিয়নের শ্রমিকেরা ১৬ হাজার টাকা করে তাদের মোবাইল ফোনে পেলেও অভিযুক্ত ইউপি সদস্য তাদের নামে থাকা সিম কৌশলে তার কাছে রেখে দিয়ে সেই টাকা নিজে তুলে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা করে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য সাইদুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ২০জন শ্রমিক কর্মসূচীতে অংশ গ্রহন করলেও প্রায় ৫২জন শ্রমিক মাটি কাটার কাজ করেছেন।

এজন্য সবাইকে টাকা ভাগ-বাটোয়ারার করে দিয়েছি। কর্মসূচীর প্রকৃত সদস্যদের নামে থাকা মোবাইলে টাকা আসলে তারা দিতে চাইবে না বলেই তাদের সিম জমা নেয়া হয়েছিলো। এখন তাদের সিম দিয়ে দেয়া হবে।

ইকরচালি ইউপি চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলীর সাথে কথা হলে তিনি হাসপাতালে আছেন তাই পরে কথা বলবেন বলে ফোন কেটে দেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আলতাফ হোসেন বলেন, প্রত্যেক শ্রমিকরা মুঠোফোনে ১৬ হাজার টাকা করেই পাবেন। বিষয়টি নিয়ে রবিবার (রবিবার)ওই ইউপি সদস্যের সাথে কথা বলবেন বলে তিনি জানান।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button