রংপুরস্থানীয়

তারাগঞ্জে ডাঙ্গীরহাট স্কুল এন্ড কলেজের গভর্ণিং বডির নির্বাচন, স্বাক্ষর জাল করে মনোনয়ন দাখিলের অভিযোগ

তারার আলো খবর:-
রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার ডাঙ্গীরহাট স্কুল ও কলেজের দু’টি শাখার গভর্ণিং বডি গঠনে দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে অবৈধভাবে মনোনয়ন দাখিল করায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও প্রিজাইটিং অফিসারকে লিখিত অভিযোগ দেয়ার পরেও তাদেরকে বৈধ ঘোষনা করায় অভিযোগকারী ও অন্যান্য মনোনয়ন দাখিলকারি ব্যক্তিগনের মনে ক্ষোভ ।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে, ডাঙ্গীরহাট স্কুল ও কলেজের গভর্ণিং বডি গঠন করার জন্য ৩১ জানুয়ারী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এ লক্ষ্যে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও প্রিজাইটিং অফিসার চলতি জানুয়ারী মাসের ১১ তারিখ তফসিল ঘোষনা করেন। মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ১৩ জানুয়ারী অফিস চলাকালিন সময় পর্যন্ত স্কুল ও কলেজ শাখা মিলে ১৪ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র জমা প্রদান করেন। যাচাই-বাছাই কমিটি গত ১৬ জানুয়ারী মনোনয়ন দাখিলকারি ১৪ জনকেই বৈধ ঘোষনা করেন|

মনোনয়ন দাখিলকারীরা হলেন দাতা সদস্য হিসেবে কিসামত মেনানগর ডাংগীরহাট গ্রামের মৃত-নাছির উদ্দিনের পুত্র নুর ইসলাম। এছাড়া স্কুল পর্যায়ে অভিভাবক সদস্য পদে- ডাংগীরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী ও উত্তর হাড়িয়ারকুঠি ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃত গোলাপ হোসেনের পুত্র আকবর হোসেন, কিসামত মেনানগর মুন্সীপাড়া গ্রামের মৃত আজিজুল সরকারের পুত্র আব্দুল আলিম সরকার,

কিসামত মেনানগর গ্রামের মৃত-একাব্বর আলীর পুত্র জিয়াউর রহমান, উজিয়াল শেখপাড়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের পুত্র তরিকুল ইসলাম, উজিয়াল চাপড়া পাড়া গ্রামের মৃত-নুর মোহাম্মদের পুত্র শফিকুল ইসলাম, স্কুল পর্যায়ে শিক্ষক প্রতিনিধি পদে কিসামত মেনানগর গ্রামের আহম্মেদ আলীর পুত্র বাবুল হোসেন এবং কলেজ পর্যায়ে অভিভাবক সদস্য পদে- খলেয়া নন্দরাম গ্রামের আব্দুর রহিম উদ্দিনের পুত্র আব্দুর রহমান,

কিসামত মেনানগর বড়বাড়ি গ্রামের মৃত-আশরাফ আলীর পুত্র মাহবুবার রহমান, কিসামত মেনানগর গ্রামের আব্দুল হালিমের পুত্র মহসীন আলী, সংরক্ষিত মহিলা বিধবা পদে কিসামত মেনানগর ঈমামপাড়া গ্রামের মৃত-সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী নুরজাহান বেওয়া, শিক্ষক প্রতিনিধি পুরুষ পদে-উজিয়াল শেখপাড়া গ্রামের আজিজার রহমানের পুত্র গোলাপ হোসেন এবং শিক্ষক প্রতিনিধি মহিলা পদে কিসামত মেনানগর গ্রামের নুরবক্তের স্ত্রী নুরজাহান বেগম।

মাধ্যমিক পর্যায়ে ৫৫৭জন ভোটার এবং কলেজ পর্যায়ে ১২৪ জন ভোটার তাদের ভোট প্রয়োগ করতে পারবেন। তবে লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, কলেজ শাখায় সংরক্ষিত মহিলা বিধবা পদে মনোনয়ন দাখিলকারী ব্যক্তি নুরজাহান বেওয়ার স্বাক্ষর জাল করে মনোনয়ন দাখিল করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার অনেকেই জানান, এই বিধবা নারী দীর্ঘদিন যাবত মেয়ে-জামাইয়ের সাথে ঢাকায় আছেন। অভিযোগকারী নুরুল ইসলাম জানান,স্বার্থ হাছিল করতে ওই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম নুরজাহান বেওয়ার স্বাক্ষর জাল করে মনোনয়পত্র জমা দিয়েছেন। আমি জাল স্বাক্ষর প্রমানের জন্য শিক্ষা কর্মকর্তাকে অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু কোন সত্যতা প্রমান করেননি।

সুরজাহান বেওয়ার ব্যবহৃত ০১৩০৯৪৪৩০৮৩ নম্বর মুঠোফোনে কথা হলে তিনি স্বীকার করে বলেন, প্রায় দেড় মাস ধরে মেয়ে-জামাইয়ের সাথে ঢাকায় আছি। আমার নামে জমাদানকৃত মনোনয়ন পত্রে আমি নিজে স্বাক্ষর করি নাই। অপরদিকে, স্কুল শাখায় অভিভাবক পদে ডাগীরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী আকবর হোসেন তার উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের অনুমতিপত্র না নিয়েই মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন যাহা সরকারি নিয়মের পরিপন্থি।

একই পদে মনোনয়ন দাখিলকারি ও অভিযোগকারি ব্যক্তি আব্দুল আলিম, তরিকুল ইসলাম এবং শফিকুল ইসলাম জানান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রিজাইডিং অফিসার সেলিনা বেগমকে যাচাই বাছাইয়ের আগেই আকবরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছি তারপরেও আকবরকে বৈধ ঘোষনা করা হয়েছে।

অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলামের মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, আগামীকাল বুধবার সকালে এসে আমার সাথে সাক্ষাতে কথা বলেন।

তারাগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও প্রিজাইটিং অফিসার সেলিনা বেগম জানান, অভিযোগ দেখার সময় নেই। তবে যে মহিলার বিরুদ্ধে অভিযোগ তাকে ঢাকা থেকে নিয়ে আসতে বলা হয়েছে।

তবে নৈশ প্রহরীর বিরুদ্ধে অভিযোগের ভিত্তি নাই।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button