রংপুরস্থানীয়

তারাগঞ্জে লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা গ্রাহকের প্রাণে আর সয় না

তারার আলো অনলাইন খবর:- রংপুরেন তারাগঞ্জ উপজেলা সদর সহ বিভিন্ন ইউনিয়নে গত দুইমাস ধরে বিদ্যুতের চরম বিভ্রাট দেখা দিয়েছে। প্রচন্ড খরতাপ, অন্যদিকে বিদ্যুতের নিয়মিত ঘনঘন আসা-যাওয়ায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে শহরবাসীর সাথে গ্রামবাসী।

সরকারের হিসাব মতে দেশে কোনো বিদ্যুতের ঘাটতি না থাকলেও সকাল হতে না হতেই সূর্যের তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সময়-অসময় দেখা দিচ্ছে তারাগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তার-কর্মচারীদের সাজানো ও কথিত বিদ্যুৎ সঞ্চালনের লাইনে ক্রটি। দিন-রাত সমান তালে চলছে লোডশেডিং। বিতরণ ও সঞ্চালন ব্যবস্থার ক্রটির কারণে সাধারণ মানুষকে দুঃসহ গরমে দিন-রাত পোহাতে হচ্ছে লোডশেডিংয়ের তীব্র যন্ত্রণা।

তারাগঞ্জ বাজারের বাসিন্দা ,সোবহান, জিকরুল মিন্টু সহ কয়েকজন জানান প্রতিদিন বিদ্যুৎ আসা –যাওয়ার খেলায় তারাগঞ্জে বসবাসরত বাসিন্দারা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তারা দিনে রাতে কতবার যে লোডশেডিং দিচ্ছে গুনে তার হিসাব রাখা দায় হয়ে পড়েছে।

তারাগঞ্জ সদর বাজারের ব্যবসায়ী মনির,তারাজুল,সামছুল,বাবু পরেশ সহ কয়েকজন জানান,সারাদিন অগনিতবার বিদ্যুৎ আসা য়াওয়ার খেলা খেলছে। বিশেষ করে এ গরমের দিনে দুপুরে ও সন্ধ্যা হলে বিদ্যুতের আসা যাওয়ার খেলা শুরু হয়। এই সময়টায় যেন বিশের মতো লাগে। এভাবে তারা গ্রাহকদের শরীর বিষিয়ে তুলছে। তারপরও গ্রাহকদের কিছুই করার নেই। এ নিয়ে একাধিকবার পল্লী বিদ্যুতের তারাগঞ্জ সাব –অফিসের কর্মকর্তাদের জানালেও তারা কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। এ যেন তারাগঞ্জে লোডশেডিং এর যন্ত্রণা গ্রাহকের আর প্রাণে সয় না। কারও কাছে কোন অভিযোগ দিয়ে কোন প্রতিকার মিলছে না। উল্টো তাদের ভূতরে বিলের কারণে বিদ্যুৎ গ্রাহকরা হয়রানীর স্বীকার হচ্ছেন। গরমে-ঘামে অস্থির তারাগঞ্জ উপজেলার মানুষ বিদ্যুতের অনবরত লোডশেডিং থেকে কবে যে রেহাই পাবে তা একমাত্র তারাগঞ্জের বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষই জানেন।

উল্লেখ্য এ লোডশেডিং এর খেলা শুধু তারাগঞ্জ উপজেলা সদরেই নয়। তারাগঞ্জ উপজেলার আলমপুর, কুর্শা, ইকরচালী, হাড়িয়ারকুঠি ও সয়ার ইউনিয়নের প্রত্যান্ত গ্রাম গুলোতেও। ইউনিয়ন পর্যায়ের কোন কোন গ্রামে পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং এর অবস্থা আরও নিম্নমুখি। সেখানে কোন কোন দিন একবার সন্ধ্যায় লোডশেডিং দিলে গভীর রাত পর্যন্ত আর আসার নাম থাকে না। অথচ এখন বর্ষাকাল সেচ মেশিন গুলো চালাতে হচ্ছে না। তারপরও বিদ্যুতের এ অবস্থা এ অবস্থার জন্য গ্রাহকরা তারাগঞ্জ জোনাল অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দায়ী করে বলেন,তারাই কারসাজী করে গ্রাহকদের হয়রানী করতে এমন লোডশেডিং দিচ্ছে।

এছাড়াও তারাগঞ্জের পাশ্ববর্তী খাতামধুপুর, চাঁদখানা,বাহাগিলী ইউনিয়নের বিদ্যুৎ গ্রাহকদের একই অবস্থা বলে তাদের অভিযোগে জানা গেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button