জাতীয়স্থানীয়

তারাগঞ্জ-বদরগঞ্জ সহ সারাদেশে জাতীয় ভাবে ‘শেখ রাসেল দিবস’ পালিত

তারার আলো খবর ও অনলাইন ডেস্ক :- বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসের নৃশংসতার চরমতম প্রকাশ। আর ঘৃণ্য নিষ্ঠুরতম হত্যাকান্ড ছিল শিশু শেখ রাসেলের হত্যা। সোমবার(১৮ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিন তারাগঞ্জ-বদরগঞ্জ সহ সারাদেশে পালিত হয়েছে। আজ থেকে ৫৭ বছর আগে ১৯৬৪ সালে তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

বেঁচে থাকলে কত বড় হতেন শেখ রাসেল। শেখ হাসিনার লেখায় ছোটবেলার রাসেলকে পাওয়া যায়। যে রাসেল বৃদ্ধিমান, আবেগপ্রবণ। কিন্তু অত্যন্ত অনুভূতিপ্রবণ একটি শিশু। যে তার বাবাকে সারাক্ষণ খুঁজে ফেরে। যার ছোট ছোট কাজে একজন বুদ্ধিদীপ্ত শিশুর পরিচয় মেলে। আজ তার ৫৮তম জন্মদিন প্রথমবারের মতো জাতীয়ভাবে দেশব্যাপী পালন করা হয়েছে ‘শেখ রাসেল দিবস’ হিসেবে। এছাড়া, বাংলাদেশের দূতাবাসসমূহেও দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়।

দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’। শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ বলেছেন, দেশের শিশু-কিশোর, তরুণ প্রজন্মের কাছে শেখ রাসেল এক ভালোবাসার নাম।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রাসেল যদি বেঁচে থাকত, তা হলে হয়তো একজন মহানুভব, দূরদর্শী ও আদর্শ নেতা আজ আমরা পেতাম, যাকে নিয়ে দেশ ও জাতি গর্ব করতে পারত।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পাঁচ সন্তানের মধ্যে সবচেয়ে ছোট শেখ রাসেল। দুই কন্যা, তিন পুত্র। কন্যা দুজন বেঁচে আছেন। একজন শেখ হাসিনা, অন্যজন শেখ রেহেনা। শেখ হাসিনা এখন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। তিন পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল এবং কনিষ্ঠতম শেখ রাসেলকে হত্যা করা হয়েছিল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বাবা-মায়ের সঙ্গেই।

একটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানকে, যিনি সেই রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা-স্থপতি, সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করার নজির পৃথিবীতে বিরল। সরকার প্রধান, রাষ্ট্রনেতা কিংবা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে প্রতিহিংসাবশত বা অন্য কোনো ক্ষমতাকেন্দ্রিক রাজনৈতিক বিবাদে হত্যা কিংবা গুপ্তহত্যার ঘটনা একাধিক ঘটেছে। কিন্তু জাতির পিতাকে সপরিবার হত্যার ঘটনা বাংলাদেশেই ঘটেছে।

বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেল তখন মাত্র চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র, ১১ বছরের শিশু। তার চোখের সামনেই একে একে হত্যা করা হয়েছে বাবা, ভাই, ভাবিদের। অনেকের মৃতদেহ পেরিয়ে গিয়ে ছোট্ট রাসেলকে গুলি করে হত্যা করে ঘাতকরা। রাসেল তখন ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র।

নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে জন্মদিনের কেক কাটছেন এমপি ডিউক চৌধুরী

দিবসটি উপলক্ষে সারাদেশের ন্যায় তারাগঞ্জ ও বদরগঞ্জ উপজেলায়ও বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিন পালিত হয়েছে।

এ উপলক্ষে বদরগঞ্জ উপজেলায় জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের শুভ জন্মদিন উপলক্ষে রংপুর-২ (তারাগঞ্জ-বদরগঞ্জ)আসনের সংসদ সদস্য আবুল কালাম মো আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক নেতা কর্মীদের সাথে নিয়ে এক আলোচনা সভা দোয়া মাহফিল এর আয়োজন করেন। পরে সেখানে কেক কেটে জন্মদিন পালন করেন। এসময় বদরগঞ্জ পৗরসভার মেয়র মো: আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল সহ দলীয় নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে তারাগঞ্জ উপজেলায়ও বিস্তারিত কর্মসূচীর মাধ্যমে দিবসটি পালন করা হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button