কুড়িগ্রাম

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি উলিপুরে বাঁধ তলিয়ে নতুন এলাকা প্লাবিত

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের উলিপুরের ব্রহ্মপুত্র ধরলা, তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। পানি বৃদ্ধির কারণে উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের প্রায় আধা কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ তলিয়ে গেছে। ফলে হু-হু করে লোকালয়ে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। ব্রহ্মপূত্র ও তিস্তা নদীর অব্যাহত

পানি বৃদ্ধির কারণে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।
কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার ব্রহ্মপুত্র নদের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ৩ সে.মি. নিচ দিয়ে, চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমার ৪৮ সে.মি. উপর দিয়ে, ধরলা নদীর পানি কুড়িগ্রাম সদর পয়েন্টে বিপদসীমার ৫ সে.মি উপর দিয়ে ও তিস্তা নদী কুড়িগ্রাম পয়েন্টে বিপদসীমার ৬০ সে.মি নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, পানি বৃদ্ধির ফলে এ উপজেলায় ২৭৫০হেক্টর জমির রোপা আমন, বীজতলা ২০ হেক্টর, শাক-সবজি ৪০ হেক্টর বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।
হাতিয়া ইউপি চেয়াম্যান বিএম আবুল হোসেন বলেন, বন্যা পরিস্থিতি দিন দিন অবনতি হচ্ছে। এ ইউনিয়নে প্রায় আড়াই হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। পানি বন্দি এসব মানুষ চরম বিপাকে দিনাতিপাত করছেন।
জেলার রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষনাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল ৬ টা থেকে বেলা ১১ টা পর্যন্ত ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সিরাজুদ্দৌল্লা বলেন, এখন পর্যন্ত ৫০ মেট্রিক টন চাল ও ২ লাখ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। দ্রæত বন্যা কবলিত এলাকায় ত্রাণ কার্যক্রম শুরু হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button