নীলফামারী

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনারোধে সৈয়দপুরে ট্রাফিক পুলিশের মাসব্যাপী সচেতনতামূলক কার্যক্রম

স্টাফ রিপোর্টার,সৈয়দপুর (নীলফামারী):
নীলফামারীর সৈয়দপুরে ট্রাফিক পুলিশ বিভাগের মাসব্যাপী অভিযান ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
“চলেন যদি হেলমেট ছাড়া, মরণ আপনাকে করবে তাড়া” শ্লোগানকে সামনে রেখে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনারোধে হেলমেট ব্যবহারে সচেতনতামূলক প্রচারণা ও একই বাইকে তিনজন আরোহী উঠা বন্ধে গত ১ অক্টোবর থেকে অভিযান শুরু হয়।

নীলফামারী জেলা পুলিশের উদ্যোগে সৈয়দপুরসহ গোটা জেলায় ওই কর্মসুচি চলছে।

এরই অংশ হিসেবে গতকাল সোমবারও সৈয়দপুর শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে ট্রাফিক আইন বিষয়ক সচেতনতামূলক কর্মসূচি ও হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল আটক অভিযান চালায় নীলফামারী জেলা পুলিশের সৈয়দপুর ট্রাফিক পুলিশ বিভাগ। শহরের বঙ্গবন্ধু চত্বরের পাঁচমাথা মোড়, শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়কস্থ মদিনা মোড়, ১নং রেলওয়ে ঘুমটি মোড়, বাস টার্মিনাল, পানি উন্নয়ন বোর্ড মোড় (পার্বতীপুর রোড), পার্বতীপুর রোডে আর্মি চেকপোস্ট মোড়, উপজেলা রোডের সিএসডি মোড়, ওয়াপদা মোড়, সোনাপুকুর রাবেয়া ফ্লাওয়ার মিল মোড়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চলে সচেতনতামূলক কার্যক্রম ও হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল আটক অভিযান।

সূত্র জানায়, গত ১ অক্টোবর থেকে মাসব্যাপী শুরু হওয়া অভিযান চলাকালে ট্রাফিক আইন অমান্য করে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালানোর দায়ে চালক ও মালিকের বিরুদ্ধে গতকাল সোমবার দুপুর পর্যন্ত ৬০ টি মামলা করা হয়েছে। এছাড়া দুইজনের বেশি মোটরসাইকেলে আরোহী অবৈধ জেনেও চালকসহ তিনজন মোটরসাইকেলে থাকায় এমন ১০ জনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়।

নীলফামারী জেলা পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের শহর ও যানবাহন পরিদর্শক মো. আবু নাহিদ পারভেজ চৌধুরীর নেতৃত্বে এ অভিযান অব্যাহতভাবে পরিচালনা করছেন ট্রাফিক সার্জেন্ট মো. আশরাফ, কোরাইশী, শহর যানবাহন উপ -পরিদর্শক (টিএসআই) মো. আব্দুল খালেকসহ ট্রাফিক বিভাগের অন্যান্য সদস্যরা।

অভিযান চলাকালে আজ সোমবার দুপুরে শহরের বঙ্গবন্ধু চত্বরের পাঁচমাথা মোড়ের ট্রাফিক বক্সের সামনে কথা হয় নীলফামারী জেলা পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের শহর ও যানবাহন পরিদর্শক মো. আবু নাহিদ পারভেজ চৌধুরীর সঙ্গে। এ সময় তিনি বলেন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনারোধে জনসচেতনতা সৃষ্টি ও হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল চালকদের আটক অভিযান সফল করতে ট্রাফিক বিভাগ তৎপর রয়েছে।

নীলফামারী জেলা পুলিশের নির্দেশনায় এ অভিযান চলবে গোটা অক্টোবর মাস পর্যন্ত। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনারোধে সচেতনতামূলক স্টিকার লাগানো এবং মাইক প্রচার অব্যাহত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে বের হলে বাবা মাসহ পরিবারের লোকজন অপেক্ষায় থাকে তার প্রিয়জন কখন বাসায় ফিরবে। কিন্তু অনেক সময় হেলমেট না থাকার কারণে ঘটে যায় দুর্ঘটনা।

ফলে অনেক পরিবারে নেমে আসে মারাত্মক দুঃখ দূর্দশা। তাই এমন অবস্থা সৃষ্টি হওয়ার আগেই ট্রাফিক আইন মেনে হেলমেট ব্যবহারে সকলকে সচেতন করতে এ অভিযান শুরু হয়েছে। এ জন্য তিনি সকল মোটরসাইকেল চালক ও মালিককে সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button