নীলফামারী

সৈয়দপুরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে এক তরুণীর আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, সৈয়দপুর (নীলফামারী):
নীলফামারীর সৈয়দপুরে সানজিদা আক্তার কণা (২০) নামে এক তরুণী গলায় ওঁড়না পেঁচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারী) শহরের নতুন বাবুপাড়ার শহীদ নূর মোহাম্মদ সড়কের একটি বাসায় ওই আত্মহত্যার ঘটনাটি ঘটে।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল গিয়ে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি নীলফামারী সদর আধুনিক মর্গে প্রেরণ করেন। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সৈয়দপুর রেলওয়ে হাসপাতালের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী শফিকুল ইসলামের মেয়ে সানজিদা আক্তার কণা। কণার বাবা শফিকুল ইসলাম অন্যত্র বসবাস করলেও তাঁর মা ফুলমনি মেয়ে কণা (২০) ও নাতি রায়হানকে নিয়ে উল্লিখিত এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো।

ঘটনার দিন কণার মা ফুলমনি পারিবারিক কাজে কণাকে রেখে বাসায় বাইরে যান। আর এরই ফাঁকে তরুণী সানজিদা আক্তার কণা নিজ বাসার ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে তাঁর মা বাসায় ফিরে এসে মেয়ে কণাকে নিজ ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওঁড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলতে দেখেন।

এ সময় তাঁর আর্তচিৎকারে আশেপাশের লোকজন দ্রুত ছুঁটে আসেন। পরে কণাকে ফাঁস লাগানো অবস্থা থেকে নামিয়ে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু সেখানে জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত. ঘোষনা করেন।

এরপর খবর পেয়ে সৈয়দপুর সদর পুলিশ ফাঁড়ির উপ- পরিদর্শক মো. আশরাফুল ইসলাম স্থানীয় ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে গিয়ে লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন।

পরে লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। তবে কি কারণে ওই তরুণী আত্মহত্যা করেছে তা জানা যায়নি। পারিবারিক কারণে সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খান জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর (ইউডি) মামলা হয়েছে।

ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলেই সানজিদা আক্তার কণার মৃত্যুর বিষয়ে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button